বাংলাদেশ, , শনিবার, ২৫ জুন ২০২২

নিষিদ্ধ হচ্ছে বেলুনে হাইড্রোজেন ব্যবহার

  প্রকাশ : ২০১৯-১১-১৬ ১৭:৪৩:৫৬  

পরিস্হিতি২৪ডটকম : বেলুনে হাইড্রোজেন গ্যাস বন্ধের পরিকল্পনা করছে সরকার। জ্বালানি মন্ত্রণালয়ে এ সংক্রান্ত নিষেধাজ্ঞা চেয়ে সুপারিশও করেছে বিস্ফোরক পরিদপ্তর। কেউ বেলুনে হাইড্রোজেন গ্যাস ব্যবহার করলে কারাদণ্ড ও আর্থিক জরিমানারও সুপারিশ করা হয়েছে। জননিরাপত্তার স্বার্থে সরকার পরিদপ্তরের সুপারিশ ইতিবাচকভাবে গ্রহণ করবে বলে জানা গেছে।

গত ৩০ অক্টোবর রাজধানীর মিরপুরের রূপনগরে বেলুনে গ্যাস ভরার সময় সিলিন্ডার বিস্ফোরণে সাত শিশু মারা যায়। আহত হয় অন্তত ১৫ জন। ঐ দুর্ঘটনার কারণ তদন্তের পর বিস্ফোরক পরিদপ্তর গত সপ্তাহে বিদ্যুত্, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয়ের যে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দিয়েছে তাতে বেলুনের জন্য হাইড্রোজেন গ্যাস ব্যবহার নিষিদ্ধের সুপারিশ করা হয়।

বিশেষজ্ঞরা জানান, যে বেলুনগুলো হাত থেকে ছেড়ে দিলে উড়ে যায় সেগুলোতে সাধারণত হিলিয়াম গ্যাস ব্যবহার করা হয়। এটি অপেক্ষাকৃত নিরাপদ। কিন্তু বাংলাদেশে অনেকে বেলুনে হাইড্রোজেন ব্যবহার করেন। হাইড্রোজেন হিলিয়ামের চেয়ে হালকা এবং এর দামও হিলিয়ামের চেয়ে কম। তাই বেলুন বিক্রেতারা হাইড্রোজেন গ্যাস ব্যবহার করেন। অথচ স্বাস্থ্য ও জীবনের প্রতি বড়ো ঝুঁকি তৈরি হচ্ছে। আর এলপিজি সিলিন্ডারে বা নিম্নমানের-মেয়াদোত্তীর্ণ সিলিন্ডারে হাইড্রোজেন পরিবহনও মারাত্মক ঝুঁকি তৈরি করছে।

বিস্ফোরক পরিদপ্তরের প্রধান পরিদর্শক সামসুল আলম বলেন, আমরা বেলুনে হাইড্রোজেন ব্যবহার নিষিদ্ধের সুপারিশ করেছি। এলপিজির বোতলে হাইড্রোজেন ভরে ব্যবহারেরও অনেক নজির রয়েছে। এ চর্চা বন্ধ করতে হবে।

সামসুল আলম জানান, বিস্ফোরক অ্যাক্ট, ১৮৮৪ এবং গ্যাস সিলিন্ডার বিধিমালা-১৯৯১, এলপিজি বিধিমালা-২০০৪ অনুযায়ী এবং পেট্রোলিয়াম আইন-২০১৬ অনুযায়ী পুলিশ প্রশাসনকে ব্যবস্থা গ্রহণ করতে অনুরোধ করা হচ্ছে।
এদিকে মিরপুরে দুর্ঘটনার তদন্ত প্রতিবেদনে বলা হয়, যে হাইড্রোজেনভর্তি সিলিন্ডার বিস্ফোরণে রূপনগরে দুর্ঘটনা ঘটেছিল সেটি ছিল মূলত এলপিজি সিলিন্ডার। এ ধরনের সিলিন্ডারে যে এলপিজি ভরা হয়, সেটি কম চাপযুক্ত গ্যাস। কিন্তু হাইড্রোজেন একটি অতি উচ্চচাপযুক্ত গ্যাস। ফলে এলপিজি সিলিন্ডারের মধ্যে হাইড্রোজেন গ্যাস উত্পাদনের চেষ্টা করলে সেটি ফেটে যাবে।



ফেইসবুকে আমরা