বাংলাদেশ, , বৃহস্পতিবার, ৩০ মে ২০২৪

দুই বাংলার সাহিত্য সম্মিলনী’১৯ সম্পন্ন

  প্রকাশ : ২০১৯-১১-২০ ১২:১৭:৩৯  

পরিস্হিতি২৪ডটকম : দ্বি-বাংলা সাহিত্য ও সাংষ্কৃতিক একাডেমী বাংলাদেশের আয়োজনে গত ১৬ নভেম্বর বিকেল ০৩ টায় জেলা শিল্পকলা একাডেমীর আর্ট গ্যালারীতে কবি ও শিশু সাহিত্যিক রমজান আলী মামুনকে উৎসর্গ করে “দুই বাংলার সাহিত্য সম্মিলনী’১৯” অনুষ্ঠিত হয়েছে। উক্ত সম্মিলনীতে চট্টগ্রাম মহিলা কলেজের অধ্যক্ষ তহুরীন সবুর ডালিয়ার সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপিস্থিত ও উদ্ভোধক হিসেবে উপিস্থিত ছিলেন বিজিসি ট্রাষ্ট ইউনিভার্সিটি উপাচার্য প্রফেসর ড. সরোজ কান্তি সিংহ হাজারী। অনুষ্ঠানে ফুলকলি ফুড প্রোডাক্ট লিঃ জেনারেল ম্যানেজার এম এ সবুর, কোলকাতার কবি তারক দত্ত, নাট্যজন সজল চৌধুরী, বিজিএপিএমইএ এর পরিচালক, শুল্ক বন্দর ও শিপিং চট্টগ্রামের আহ্বায়ক খন্দকার লতিফুর রহমান আজিম। উপস্থাপিকা দিলরুবা খানমের সঞ্চালনায় ও সংগঠনের পরিচালক ইমরান সোহেলের তত্বাবধানে অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন আলহাজ্ব এস এম কামরুল ইসলাম, কবি ফারুক হাসান, কবি ফারজানা রহমান শিমু, কবি আব্দুল্লাহ মজুমদার, কবি নুরন্নাহার নিপা, কবি শহিদুল ইসলাম শহিদ, কবি সজল দাশ, কবি সোমা মুৎসুদ্দি, ভারত থেকে আগত কবিরা হলেন জিতেন চক্রবর্তী, বিনা বর্ধন, ষষটি রাম সাহা, তনু রানী সরকার, মঞ্জুশ্রী মিত্র, মধুসুধন সরকার, বসুমতি সাহা, লিনা গাঙ্গুলি, দীপঙ্কর গাঙ্গুলি, তারকনাথ দত্ত, বাচিক শিল্পী আশিক আরেফীন, সায়েম উদ্দিন, পুণম দত্ত, দীপা দাশ, তিষমা বড়ুয়া প্রমূখ।
বক্তারা বলেন দুই বাংলার মানুষ আমরা একই ভাষা কথা বলি। যখন আমরা সাহিত্য সাংষ্কৃকিত বিভিন্ন প্রোগ্রামে অংশগ্রহণ করতে আসি তখন একটি কাটাতারের ব্যাবধান যে আছে সেই কথা আমাদের মনে থাকেনা। মনে হয় যেন আমরা আমাদেও দেশেই আছি। বক্তারা র্আও বলেন আপনারা যারা ভারত থেকে এই দেশে এসেছেন আপনাদেও মাধ্যমে ভারত সরকারের নিকট বার্তা পৌছাতে চাই যে বাংলাদেশের সাথে যেসকল সমস্যা রয়েছে তা যেনো সমাধানের চেষ্টা করে। মহান স্বাধীনতা সংগ্রামে যেমন বন্ধুপ্রতীম রাষ্ট্র ছিলেন, সেই বন্ধন যেনো আজীবন অটুট থাকে সেই কামনা করছি।
প্রেস বিজ্ঞপ্তি



ফেইসবুকে আমরা