বাংলাদেশ, , শনিবার, ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৯

শিরোনাম

গ্রন্থাগার ও গ্রন্থ মানুষকে সভ্যতার সন্ধান দিয়েছে : জাতীয় গ্রন্থাগার দিবসের আলোচনা সভায় বক্তারা

  প্রকাশ : ২০১৯-০২-০৫ ১৭:৩১:২২  

পরিস্হিতি২৪ডটকম : জাতীয় গ্রন্থাগার দিবস ২০১৯ উদযাপন উপলে এক আলোচনা সভা ও পুস্তক প্রদর্শন ৫ ফেব্রুয়ারি মঙ্গলবার সকালে চট্টগ্রাম নগরীর মেরিট বাংলাদেশ স্কুল মিলনায়তনে ইতিহাস গবেষক, দু®প্রাপ্য পুস্তক সংগ্রাহক ও গ্রন্থাগার কর্মী সোহেল মো. ফখরুদ-দীনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানের আলোচনায় অংশগ্রহণ করেন এ কে এম আবু ইউসুফ, বাবু দুলাল কান্তি বড়ুয়া, রেজাউল করিম তালুকদার, শাহানুর আলম, অধ্যক্ষ ইউনুচ কুতুবী, মোহাম্মদ ওসমান গণি, মোহাম্মদ নজরুল ইসলাম চৌধুরী, সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী, অধ্যাপক জিতেন্দ্র লাল বড়ুয়া, প্রবীণ শিক্ষাবিদ নুরুল আলম, সৈয়দ শিবলী ছাদেক কফিল প্রমুখ। জাতীয় গ্রন্থাগার দিবসে পুস্তক প্রদর্শনে অংশগ্রহণ করেন মাওলানা মোহাম্মদ আলী পারিবারিক পাঠাগার, আবদুল হাকিম মাস্টার পারিবারিক পাঠাগার, চট্টগ্রাম ইতিহাস চর্চা কেন্দ্র, ফকির মোহাম্মদ স্মৃতি পাঠাগার, নুরুল ইসলাম আল কাদেরী স্মৃতি সংসদ ও পাঠাগার, বার আউলিয়া পাঠাগার, রনধীর বড়ুয়া স্মৃতি সংসদ ও পাঠাগার। আলোচনা সভায় বক্তারা বলেছেন, জাতীয় গ্রন্থাগার দিবসের তাৎপর্য ও গুরুত্ব বর্তমান প্রজন্মের কাছে তুলে ধরা খুবই জরুরি। ইতিহাস ও ঐতিহ্যের সন্ধান পাওয়ার জন্য গ্রন্থাগার ও গ্রন্থ মানুষকে সাহায্য করে। গ্রন্থাগার ও গ্রন্থ মানুষকে সভ্যতার সন্ধান দিয়েছে। আজকের সভ্য পৃথিবীর প্রাচীন ইতিহাস জানতে গ্রন্থাগার ও গ্রন্থ বিশেষ ভূমিকা রেখেছে। সমাজের প্রতিটি পাড়ায়, ঘরে ঘরে গ্রন্থাগার গড়ে উঠলে সমাজ ও দেশ আলোকিত হবে। একটি ভালো গ্রন্থ প্রজন্মকে অনেকদূর এগিয়ে নিয়ে যেতে সক্ষম। সে জন্য আমাদের নব প্রজন্মকে ভালো বইয়ের সাথে পরিচিত হওয়া ও ভালো বই পাঠের অভ্যাস গড়ে তোলা দরকার। সভায় বক্তারা বাংলাদেশের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে গত বছর থেকে পৃথকভাবে জাতীয় গ্রন্থাগার দিবস প্রণয়নে ভূমিকা রাখার জন্য ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানান।
প্রেস বিজ্ঞপ্তি



ফেইসবুকে আমরা