বাংলাদেশ, , মঙ্গলবার, ৭ জুলাই ২০২০

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০১৯-২০২০ আর্থিক সনের সংশোধিত বাজেট ও ২০২০-২০২১ আর্থিক সনের প্রাক্কলিত বাজেট অনুমোদন

  প্রকাশ : ২০২০-০৬-২৯ ১৪:১৯:০২  

পরিস্হিতি২৪ডটকম : চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় ফাইন্যান্স কমিটি (এফসি) ও সিন্ডিকেটের ৫৬ তম যৌথ সভা ২৭ জুন ২০২০ বেলা ১১.৩০ টায় চবি চারুকলা ইনস্টিটিউটের কনফারেন্স রুমে শারীরিক দুরত্ব বজায় রেখে অনুষ্ঠিত হয়। এ সভায় সভাপতিত্ব করেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. শিরীণ আখতার। সভায় ২০১৯-২০২০ আর্থিক সনের সংশোধিত বাজেট ৩৪১১৫.০০ লক্ষ টাকা এবং ২০২০-২০২১ আর্থিক সনের প্রাক্কলিত বাজেট ৩৫১৮৫.০০ লক্ষ টাকা অনুমোদন করা হয়।
উপাচার্য তাঁর ভাষণের শুরুতে সাম্প্রতিককালে করোনাভাইরাসের মহামারী ও অসুস্থতার কারণে চবি পরিবারের সম্মানিত শিক্ষক, কর্মকর্তা এবং কর্মচারীর মৃত্যুতে গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করেন এবং বিশ্ববিদ্যালয় পরিবারের অসুস্থ সদস্যদের আশু রোগ মুক্তি কামনা করেন। এ ছাড়া বিশ্ববিদ্যালয় পরিবারের সদ্য প্রয়াত ব্যক্তিবর্গের সম্মানে উপস্থিত সকলে দাঁড়িয়ে একমিনিট নিরবতা পালন করেন। সভায় মহামান্য রাষ্ট্রপতি কর্তৃক মনোনয়ন পাওয়া চবি তিনজন সিন্ডিকেট সদস্যসহ উপস্থিত এফসি ও সিন্ডিকেটের সম্মানিত সদস্যবৃন্দকে উপাচার্য আন্তরিক শুভেচ্ছা ও ধন্যবাদ জানান। উপাচার্য করোনা ভাইরাসের এ মহাদুর্যোগে চবি প্রশাসন কর্তৃক বিশ্ববিদ্যালয় পরিবারের সম্মানিত শিক্ষক, কর্মকর্তা-কর্মচারী ও শিক্ষার্থীদের সুরক্ষার ব্যাপারে গৃহীত বিভিন্ন কার্যক্রমের একটি সংক্ষিপ্ত বিবরণ সভায় তুলে ধরেন। উপাচার্য বলেন, এবারের বাজেটে বিশ্ববিদ্যালয়ের একাডেমিক কার্যক্রমকে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দেয়া হয়েছে। সরকারের গৃহীত কার্যক্রমের সাথে সঙ্গতি রেখে শিক্ষা-গবেষণার মান অধিকতর বাড়াতে চবি প্রশাসন কার্যকর উদ্যোগ গ্রহণ করেছে। করোনা ভাইরাসের এ মহামারীতে শিক্ষা-গবেষণার ক্ষতি পুষিয়ে ওঠতে চবি প্রশাসন কর্তৃক ইতোমধ্যে অনলাইনে ক্লাস নেওয়ার ব্যাপারে সংশ্লিষ্ট পর্ষদের সাথে আলাপ-আলোচনার মাধ্যমে একটি গ্রহণযোগ্য অবস্থানে পৌঁছাতে সক্ষম হয়েছি যা অচিরেই দৃশ্যমান হবে। তিনি আরও বলেন, বিশ্ববিদ্যালয় পরিবারের সকলকে সাথে নিয়ে সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ পরিবেশে বিশ্ববিদ্যালয় পরিচালনা, শিক্ষা-গবেষণার অধিকতর মান বৃদ্ধি, অবকাঠামোগত উন্নয়ন, সম্পদ সুরক্ষা ও এর যথাযথ ব্যবহার এবং উচ্চ শিক্ষা ও গবেষণার বিরাজমান পরিবেশ সমুন্নত রাখাসহ সর্বোপরি বিশ্ববিদ্যালয়ের সার্বিক উন্নয়নে তাঁর কর্মপ্রচেষ্টা অব্যাহত থাকবে। উপাচার্য এ বিশ্ববিদ্যালয়কে মহান মুক্তিযুদ্ধের নির্ভীক চেতনায় উজ্জীবিত হয়ে জ্ঞান-গবেষণার চলমান ধারা অব্যাহত রাখতে সংশ্লিষ্ট সকলের আন্তরিক সহযোগিতা প্রত্যাশা করেন।
সিন্ডিকেট ও এফসি’র যৌথ সভায় উপস্থিত ছিলেন সিন্ডিকেট সদস্য এস এম ফজলুল হক, প্রফেসর ড. কাজী এস এম খসরুল আলম কুদ্দুসী, প্রফেসর ড. এ কে এম মাঈনুল হক মিয়াজী, প্রফেসর ড. মোহাম্মদ নাসিম হাসান, অনলাইনে অংশগ্রহণ করেন প্রফেসর ড. মোহাম্মদ মহীবুল আজিজ, মহামান্য রাষ্ট্রপতির কার্যালয়ের সচিব ও চবি সিন্ডিকেট সদস্য সম্পদ বড়ুয়া ও সিন্ডিকেট সচিব চবি রেজিস্ট্রার (ভারপ্রাপ্ত) কে এম নুর আহমদ এবং এফসি সদস্য প্রফেসর ড. ইমরান হোসেন, প্রফেসর ড. সুলতান আহমেদ, অনলাইনে অংশগ্রহণ করেন এফসি সদস্য প্রফেসর আবু মুহাম্মদ আতিকুর রহমান ও ছিদ্দিকুর রহমান ভূঁইয়া।
সভায় বিজ্ঞ সম্মানিত সিন্ডিকেট ও এফসি সদস্যবৃন্দ উপাচার্যকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানান। সম্মানিত সদস্যবৃন্দ বাজেটের বিভিন্ন দিক সম্পর্কে স্বতঃস্ফূর্ত আলোচনায় অংশগ্রহণ করেন এবং তাঁদের বিজ্ঞ ও সুচিন্তিত মতামত তুলে ধরেন। উপস্থিত সম্মানিত সদস্যবৃন্দ চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে উচ্চ শিক্ষা ও গবেষণা উন্নয়নে একটি সময়োপযোগী আধুনিক ধ্যান-ধারণা সম্বলিত বাজেট পেশ করার জন্য মাননীয় উপাচার্য এবং সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে আন্তরিক ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন।
সভায় চবি হিসাব নিয়ামক (ভারপ্রাপ্ত) এফসি সচিব মো. ফরিদুল আলম চৌধুরী বাজেট উপস্থাপন করেন এবং তা আগামী সিনেট সভায় পেশ করার জন্য অনুমোদন করা হয়।
প্রেস বিজ্ঞপ্তি



ফেইসবুকে আমরা