বাংলাদেশ, , বৃহস্পতিবার, ২১ নভেম্বর ২০১৯

চট্টগ্রামের গৃহবধু লাকী আকতার ওয়ালটন ডিজিটাল ক্যাম্পেইন সিজন-৫ এ ২০০% ক্যাশব্যাক অফারে ১০০% বিজয়ী

  প্রকাশ : ২০১৯-১১-০৬ ১৯:২০:৫১  

ওয়ালটন ডিজিটাল ক্যাম্পেইন সিজন-৫ এ ২০০% ক্যাশব্যাক অফারে ১০০% সেীভাগ্যবান বিজয়ী মদুনাঘাটের গৃহবধু লাকী আকতারের হাতে পুরস্কার প্রদান অনূষ্টানে আলহাজ্ব শাখাওয়াত হোসেন : বাংলাদেশি হিসেবে সবারই দেশে তৈরি পণ্যে ওয়ালটনের উপর আস্থা রাখা উচিত

পরিস্হিতি২৪ডটকম : ডিজিটাল ক্যাম্পেইন সিজন-৫। অনলাইনে দ্রুত ও সর্বোত্তম বিক্রয়োত্তর সেবা প্রদানের লক্ষ্য সারা দেশে এই ক্যাম্পেইন চালাচ্ছে বাংলাদেশি মাল্টিন্যাশনাল ব্র্যান্ড ওয়ালটন। ক্যাম্পেইনের প্রতি সিজনেই ক্রেতাদের জন্য নতুন নতুন চমক রাখে ওয়ালটন। এবার সিজন-৫ এ রেফ্রিজারেটর বা ফ্রিজ ক্রেতাদের ২০০ শতাংশ পর্যন্ত ক্যাশ ভাউচার পাওয়ার সুযোগ দিচ্ছে এই কোম্পানী। রয়েছে নিশ্চিত ক্যাশব্যাক। এই অফারে ওয়ালটন ফ্রিজ কিনে এসএমএস এর মাধ্যমে ডিজিটাল রেজিষ্ট্রেশন করে ১০০% ক্যাশ ভাউচার পেয়েছেন চট্টগ্রাম মদুনাঘাট এর গৃহবধূ লাকি আকতার। গতকাল ৫ নভেম্বর বিকেল ৩ ঘটিকায় নগরীর কালুরঘাটস্থ মৌলভী বাজার লাবিব মার্কেটিং কোম্পানীর কার্যালয়ে সেই সৌভাগ্যবান বিজয়ী গৃহবধু লাকী আকতারের হাতে জমকালো অনুষ্ঠানের মাধ্যমে পুরস্কার তুলে দেওয়া হয়।বিশিষ্ট সমাজসেবক,শিক্ষানুরাগী,ইন্টারন্যাশনাল হিউম্যান রাইটস’র চট্টগ্রাম বিভাগীয় সভাপতি ও লাবিব মার্কেটিং কোম্পানির চেয়ারম্যান আলহাজ্ব শাখাওয়াত হোসেনের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মোহরা ৫নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর ও বিশিষ্ট সমাজসেবক মোহাম্মদ আজম। সম্মানিত অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ইউসিবিএল এর কামালবাজার শাখার সু-দক্ষ ম্যানেজার ওয়াহিদ উজ্জামান চৌধুরী, ভ্যাট কর্মকর্তা রাহুল তালুকদার, লাবিব মার্কেটিং কোঃ এক্সিকিউটিভ ডিরেক্টর এরশাদ হোসেন, হিসাব কর্মকর্তা সুমিত বড়ুয়া, সেলসম্যান আরফাত হোসেন প্রমূখ।

অনুষ্ঠানে সভাপতির বক্তব্যে লাবিব মার্কেটিং কোম্পানীর চেয়ারম্যান শাখাওয়াত হোসেন বলেন, ফ্রিজে দ্বিগুণ ক্যাশ ভাউচার বিজয়ীর হাতে পুরস্কার তুলে দিতে পেরে আমি অভিভূত। ইলেকট্রনিক্স, আইটি কিংবা হোম অ্যাপ্লায়েন্স পণ্যে দেশীয় ব্র্যান্ড ওয়ালটনের উপর শতভাগ আস্থা রাখা যায়। আমি মনে করি, বাংলাদেশি হিসেবে সবারই দেশে তৈরি পণ্যে আস্থা রাখা উচিত। এতে নতুন কর্মসংস্থান সৃষ্টির পাশাপাশি দেশ আরও এগিয়ে যাবে।

প্রধান অতিথি কাউন্সিলর মোহাম্মদ আজম বলেন, ওয়ালটন বাংলাদেশের ব্র্যান্ড, উদ্যোক্তারা এ মাটির সন্তান, পণ্যও তৈরি হয় বাংলাদেশেই। কারখানায় কাজও করেন বাংলাদেশি শ্রমিকেরা। এ দেশের উদ্যোক্তারা যে ইলেকট্রনিকসের মতো উচ্চ প্রযুক্তির পণ্য উৎপাদনের কারখানা করতে পারেন, বাজারের সিংহভাগ দখল করতে পারেন, তা প্রমাণ করেছে ওয়ালটন। ইউসিবিএল এর ম্যানেজার ওয়াহিদুর রহমান চৌধুরী বলেন, দেশীয় পণ্য উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান ওয়ালটন দেশের গন্ডি পেরিয়ে বিশ্বের অনেক গুলো বাজারে তাদের পণ্যের বাজার বিস্তৃত করেছে যা বাংলাদেশের জন্য সৌভাগ্যের বিষয়। এই কোম্পানীর অগ্রযাত্রা মানে এই দেশেরই অগ্রযাত্রা। তাই সকলের উচিত দেশীয় কোম্পানীর পণ্য ক্রয় করে দেশের মুদ্রা দেশে রাখা।

প্রেস বিজ্ঞপ্তি



ফেইসবুকে আমরা