বাংলাদেশ, , শুক্রবার, ২১ ফেব্রুয়ারি ২০২০

খালেদা-তারেকের দুর্নীতিতে দেশ অন্ধকারে নিমজ্জিত ছিল : মাহবুব উল আলম হানিফ

  প্রকাশ : ২০২০-০২-০৫ ১৮:৩৫:৫১  

পরিস্হিতি২৪ডটকম : বিগত জোট সরকারের আমলে খালেদা-তারেকের দুর্নীতির কারণে দেশ অন্ধকারে নিমজ্জিত ছিল বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ। তিনি বলেন, ‘ক্ষমতায় থেকে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া আর তার চোরপুত্র তারেক রহমান হাওয়া ভবন নিয়ে এতই ব্যস্ত ছিল যে, সে সময় সোনার বাংলা দুর্নীতিতে বিশ্বে কয়েক বার চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল।’

বুধবার ঈশ্বরদীর পাকশীতে মুক্তিযোদ্ধা-জনতা সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন তিনি।

তিনি বলেন, ‘জঙ্গিবাদ, সন্ত্রাস আর নৈরাজ্য সৃষ্টি করে দেশ অচল করে দিয়েছিল তারা। অন্ধকারে তলিয়ে যাওয়া দেশকে মাত্র ১১ বছরে বঙ্গবন্ধু কন্যা দেশরত্ন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আলোর মুখ দেখিয়েছেন। দেশের অসহায় মানুষগুলো আজ শান্তিতে আছেন।’

তিনি আরো বলেন, ‘২০ বছর আগে অসহায় মা-বোনেরা ছেঁড়া-জোড়াতালি দেওয়া শাড়ি পড়ে থাকতো। এখন মা-বোনদের ছেঁড়া শাড়ি পড়ে থাকতে দেখা যায় না। বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা বয়স্ক অসহায় নারীদের বিভিন্ন ভাতার ব্যবস্থা করে দিয়েছেন। সকল ষড়যন্ত্রকে মোকাবেলা করে তাই দেশ দ্রুত এগিয়ে চলেছে।’

মুক্তিযোদ্ধা-জনতা সংবর্ধনা কমিটির আহ্বায়ক মুক্তিযোদ্ধা এ্যাড. কাজী সদরুল হক সুধার সভাপতিত্বে মাহবুব উল আলম হানিফ বলেন, ‘সাবেক মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী হেনরি কিসিঞ্জার ১৯৭২ সালে বলেছিলেন-বাংলাদেশ একটি ‘তলাবিহীন ঝুড়ি’। সত্তরের দশকে জাস্ট ফ্যালান্ড ও জন পার্কিনসন নামের দুই অর্থনীতিবিদের যৌথভাবে লেখা বাংলাদেশের উন্নয়ন সম্পর্কিত বিখ্যাত বইটির নাম ছিল বাংলাদেশ: এ টেস্ট কেইস অব ডেভেলপমেন্ট। বিশ্বের এই অর্থনীতিবিদরা বিশ্বাসই করেননি যে, এই দেশ কোনদিন উন্নতি লাভ করবে। অর্থনীতিবিদদের সকল গবেষণাকে ভুল প্রমাণিত করে বাংলাদেশ আজ উন্নয়নের রোল মডেলে পরিণত হয়েছে।’

পাবনা জেলা পরিষদের সদস্য সাইফুল আলম বাবু মন্ডলের সঞ্চালনায় অতিথিদের মধ্যে ছিলেন-মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন বহির্বিশ্বে জনমত গঠনে ভূমিকা পালনকারী রবিউল আলম, কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা মন্ডলীর সদস্য, মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক উপ-কমিটির চেয়ারম্যান সাবেক সচিব রশিদুল আলম, জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর ভাগ্নি হাবিবা আলম ও মহিলা আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সভাপতি আজিজা খানম।
এসময় আরো বক্তব্য রাখেন, পাবনা জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ও উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান নুরুজ্জামান বিশ্বাস, উপজেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি নায়েব আলী বিশ্বাস, সহ-সভাপতি রশিদুল্লাহ, ঈশ্বরদী পৌরসভার মেয়র আবুল কালাম আজাদ মিন্টু ও পাকশী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা হাবিবুল ইসলাম হববুল।

এর আগে বেলা ১২টায় পাকশী উদীচী শিল্পীদের পরিবেশনায় জাতীয় সংগীত ও গণ সংগীতের মাধ্যমে এ অনুষ্ঠানের সূচনা হয়। তারপর ভাষা শহীদদের স্মরণে এক মিনিট নিরবতা পালন করা হয়। এরপর অতিথিবৃন্দদের ফুল দিয়ে বরণ ও সম্মাননা স্মারক দেওয়া হয়।

সুত্র : দৈনিক ইত্তেফাক



ফেইসবুকে আমরা