বাংলাদেশ, , রোববার, ১৫ সেপ্টেম্বর ২০১৯

এডভোকেট কামেলা খানম রূপা চন্দনাইশ উপজেলায় মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে নৌকা প্রতীকের মনোনয়ন প্রত্যাশী

  প্রকাশ : ২০১৯-০২-০৩ ১৮:০৯:০১  

পরিস্হিতি২৪ডটকম : একজন আইনজীবী ও বঙ্গবন্ধুর আদর্শের কর্মী হিসেবে বিভিন্ন স্থানীয়, জাতীয় এবং আইনজীবী বারের নির্বাচনগুলোতে সক্রিয ভূমিকা রাখা একজন আইনবিদ কামেলা খানম রূপা। বিগত জাতীয় সংসদ নির্বাচনে চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলার অন্তর্গত সকল উপজেলা সহ নিজ উপজেলা চন্দনাইশের প্রতিটি গ্রাম মহল্লার গণসংযোগ ও নারী ভোটারদের সাথে উঠান বৈঠক করে দলের সাথে সাধারণ ভোটার ও নারী ভোটারদের অধিকতর সম্পৃক্ত করেন তিনি। উন্নয়ন ও নারী বান্ধব সরকারের উন্নয়ন কাজকে তৃণমূল পর্যায়ে আরো বেশি বেগবান ও জনসাধারণের সেবা করার মানসে আসন্ন উপজেলা নির্বাচনে চন্দনাইশ উপজেলা সংরতি মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে নির্বাচন করার জন্য প্রস্তুত এই আইনজীবী। শুধুমাত্র দলীয় মনোনয়ন পেলে নিরঙ্কুশ বিজয় লাভ করার মতো জনসমর্থন ও সাংগঠনিক অবস্থা রয়েছে এডভোকেট কামেলা খানম রূপার। জন্মগতভাবেই চট্টগ্রাম আওয়ামী পরিবার হতে আসা এই আইনজীবী পারিবারিকভাবেই উচ্চ মর্যাদার অধিকারী ও সুশিক্ষিত। তাঁর পরিবারের সদস্যগণও সুশিক্ষিত এবং আওয়ামীলীগের রাজনীতির সাথে জড়িত। তিনি হাইকোর্ট ও জেলা জজ কোর্টে আইনজীবী হিসেবে অতি সুনামের সহিত কাজ করে যাচ্ছেন। তরুণ এই আইনবিদ দক্ষিণ জেলা যুব মহিলা লীগের যুগ্ম আহ্বায়ক, বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশনের চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলার আইন বিষয়ক সম্পাদক, যুগ্ম আহ্বায়ক ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির আইন সহায়তা সেল চট্টগ্রাম জেলা, চট্টগ্রাম জেলা বঙ্গবন্ধু আওয়ামী আইনজীবী পরিষদের সদস্য, সমাজ কল্যাণ বিষয়ক সম্পাদক চট্টগ্রাম জেলা মহিলা আইনজীবী পরিষদ। এছাড়াও চট্টগ্রাম জেলার বিভিন্ন সংগঠনের সাথে জড়িত তিনি। এডভোকেট কামেলা খানম রূপার স্বামী- মোহাম্মদ ইসকান্দার মির্জা একজন প্রতিষ্ঠিত ব্যবসায়ী ও আওয়ামী রাজনীতির সাথে সম্পৃক্ত। তার পিতা মো. কামাল উদ্দীন একজন বীরমুক্তিযোদ্ধা ও অভিজ্ঞ আইনজীবী। ২০০৭ সালে চট্টগ্রাম আইনজীবী আওয়ামীলীগ সমন্বয় পরিষদের জেলা বারের সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট ছিলেন। বর্তমানে সিনিয়র আইনজীবী হিসেবে চট্টগ্রামে আইন পেশায় নিযুক্ত আছেন ও মাতা- জাহেদা খানম হালিশহর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের একজন শিক্ষিকা। পারিবারিকভাবে তার বড় জেঠা মৃত দানেশ ভূঁইয়া (সিএ লন্ডন) জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর সহচর ছিলেন এবং ছোট চাচা মো. আবুল বশর ভূঁইয়া বর্তমান চন্দনাইশ উপজেলা আওয়ামীলীগ এর সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট। ঐতিহ্যবাহী পরিবারের সুশিক্ষিত সংগঠনপ্রিয় এই নারী নেত্রীকে উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে ভাইস চেয়ারম্যান পদে না পেলে সেটা দলের জন্য দুঃখজনক। তিনি ইতিমধ্যে আসন্ন চন্দনাইশ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে সংরতি মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে নৌকা প্রতীকের মনোনয়ন পাবার প্রত্যাশায় চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা আওয়ামীলীগের মাধ্যমে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের মাননীয় সভাপতি জননেত্রী শেখ হাসিনা বরাবরে আবেদন পত্র ও জীবন বৃত্তান্ত জমা দিয়েছেন। তিনি সামাজিক কর্মকান্ডের সাথে সম্পৃক্ত থেকে গ্রামীণ নারীদের আর্তসামাজিক উন্নয়নের জন্য বিভিন্ন কর্মসূচী গ্রহণ, বাল্য বিবাহ রোধ, যৌতুক বিরোধী কর্মসূচী ও মাদকমুক্ত সমাজ গঠনে উদ্ভুদ্ধ করণে স্থানীয় সামাজিক কর্মসূচীতে নিয়মিত অংশগ্রহণ করছেন। এডভোকেট কামেলা খানম রুপা বলেন, আমি মনোনয়ন পাওয়ার ব্যাপারে শতভাগ আশাবাদী ইনশাআল্লাহ। আমার থেকে যোগ্যতা সম্পন্ন মহিলা নেত্রী থাকলে আমি সরে যাবো। কিন্তু সব বিষয়ে আমার থেকে নিন্ম যোগ্যতার কাউকে নমিনেশন দিলে আমি মানবো না। তিনি আরো বলেন, আপনাদের যে ভালবাসা, আন্তরিকতা ও সহযোগিতা পেয়েছি, তার জন্য আপনাদের প্রতি আজীবন কৃতজ্ঞতার পাশে আবদ্ধ থাকব। আপনাদের আরো অধিকতর দোয়া, ভালবাসা ও শুভ কামনা প্রত্যাশা করছি। এদিকে এলাকায় দারুন জনপ্রিয় নেত্রী রুপা। তার পিতা আইনজীবী, গরীব লোকদের বিশেষ করে দলের অবহেলিত কর্মীদের জন্যে বিনে পয়সায় মামলা লড়েন। বিগত নির্বাচনে চষে বেড়িয়েছিলেন, এলাকার জনগন বলেন এবার রুপার কাজের মুল্যায়ন করার সময় এসেছে। তার শ্রম মেধা কে কাজে লাগালে মহিলা আওয়ামীলীগ আরো এগিয়ে যাবে।



ফেইসবুকে আমরা